This is default featured slide 1 title

Go to Blogger edit html and find these sentences.Now replace these sentences with your own descriptions.This theme is Bloggerized by Lasantha Bandara - Premiumbloggertemplates.com.

This is default featured slide 2 title

Go to Blogger edit html and find these sentences.Now replace these sentences with your own descriptions.This theme is Bloggerized by Lasantha Bandara - Premiumbloggertemplates.com.

This is default featured slide 4 title

Go to Blogger edit html and find these sentences.Now replace these sentences with your own descriptions.This theme is Bloggerized by Lasantha Bandara - Premiumbloggertemplates.com.

This is default featured slide 5 title

Go to Blogger edit html and find these sentences.Now replace these sentences with your own descriptions.This theme is Bloggerized by Lasantha Bandara - Premiumbloggertemplates.com.

Thursday, August 30, 2018

How to make strawberry ice- cream


Materials:
  • strawberry 1 cup
  • quarter cup sugar powder
  • quarter cup fresh crim
  • 1 cup full-fat milk
  • Half cup lemon juice

 recipe:

1. Takes half a cup of strawberry and sugar in a bowl and mix it well.

2. Mix sugar and cream well than mix lemon juice.

3. All the mixture pours in the aluminum tray and keep it in refrigerator
at least 8 to 9 hours with covering aluminum foil.

4. Out it from refrigerator and along with blend it so that breaks ice cubes.
 After blend, it will be thick mixture and not to be thin.

5. This mixture pours at bowl and mixed it with quarter cup of strawberry well. 
Now all the mixture freezes up for 5 to 6 hours.

 Now ready for test your strawberry ice-cream.

Saturday, August 11, 2018

Beef Vhuna Reciipe bangladeshi style ( গরুর মাংসের ভুনা )

আমরা যারা গরুর মাংস খেতে পছন্দ করি তাঁদের জন্য এই গরুর মাংসের ভুনা রেসিপি দেওয়া হল । আশা ক্রি আমার আই রেসিপি ফলো করে রান্নাতি করলে খুব সহজে রান্নাটি করে ফেলতে পারবেন এবং সকলকে এই সুস্বাদু গরুর মাংসের ভুনা করে খাওয়াতে পারবেন । চলুন এবার দেখে নেয়া যাক                                                               কিভাবে রান্নাটি করতে হবে ।



          উপকরন ঃ

                                                                গরুর মাংস - আধা কেজি
                                                                 তেল            - আধা কাপ
                                                                 হলুদ গুড়া   - আধা চা চামচ
                                                                 মরিচ গুড়া  - ১ চা চামচ
                                                                  পেয়াজ কুচি- ১ টেবিল চামচ
                                                                  আদা বাটা    - ১ চা চামচ
                                                                  রসুন বাটা    - ১ চা চামচ
                                                                  মরিচ কুচি    - ১ চা চামচ
                                                                  তেজ পাতা  - ২ টা
                                                                  এলাচ          - ৩ টা
                                                                  দারুচিনি     - ৩ টুকরা
                                                                  লবঙ্গ          - ৩ টা
                                                                  ধনে গুড়া    - ১ চা চামচ
                                                                  জিরার গুড়া - ১ চা চামচ
                                                                  লেবুর রস     - ১ চা চামচ


                                                                  রান্নার পদ্ধতি ঃ

প্রথমে কড়াইতে তেল গরম দিতে হবে । তেল গরম হলে পেয়াজ কুচি দিন । বাদামি কালার হলে তাতে হলুদ গুড়া,মরিচ গুড়া, মরিচ কুচি ( কাঁচা মরিচ আস্ত ২,৩ টাও দিতে পারেন), রসুন বাটা, এলাচ ,তেজ পাতা, দারুচিনি, লবঙ্গ দিয়ে ভালো ভাবে কষিয়ে নিতে হবে । কষানো হয়ে গেলে তাতে গরুর মাংস দিয়ে দিন । এখন মাংসের উপড়ে একটু মিক্স কারি পাওডার দিতে পারেন (মিক্স পাওডার না দিলেও পারেন সে ক্ষেত্রে আপনাকে হলুদ, মরিচ, ধনিয়া গুড়া একটু বাড়িয়ে দিতে হবে ) । তারপর মাংসটাকে ১০ মিনিট জ্বাল দিতে হবে । যখন ভালোভাবে  বলক উঠবে তখন ধনে গুরা, জিরার গুরা ও আদা বাটা দিয়ে দিন এবং আর একবার কসান দেন তারপর ১ কাপ পানি দিয়ে দিন যাতে মাংস লেগে না যায় । মাংস যখন সেদ্ধ হয়ে আসবে তখন নামানুর আগে লেবুর রস দিতে পারেন ( লেবুর রস না দিলেও হবে ) । মাংস সেদ্ধ হলে মাখা মাখা ঝোল রেখে নামিয়ে ফেলুন ।
আর গরম গরম পরিবেশন করুন গরুর মাংসের ভুনা ।





Friday, August 10, 2018

crispy fried chicken recipe with KFC style ( ফ্রাইড চিকেন )

আমি আপনাদের একটি রেসিপি শেয়ার করব । যারা নতুন রান্না শিখছেন তারা চাইলে আমার এই রেসিপি ফলো করে খুব সহজেই তৈরি করে ফেলতে পারবেন মজাদার ক্রিস্পি ফ্রাইড চিকেন  আর সবাইকে চমকে দিতে পারেন ।


উপকরনঃ

মুরগির মাংস ৪ পিস দুধ আধা কাপ ভিনেগার 1 টিবিল 1 টি চামচ আদা 1 টেবিল চামচ রসুন 1 টি পাপরিকা আধা চামচ কালো কাগজ লবণ ধনে 1 টেবিল চামচ বাসেল 1 টেবিল চামচ অরেগান আধা টাফ সরিষা sauce আধা tsp চিনি পাউডার আধা চামচ
তেল প্রয়োজন মত **ময়দা 1 কাপ + লবণ + আধা চা চামচ কালো মরিচের গুরা **ডিম 1+ আধা চা চামচ আদা এবং আধা চা চামচ রসুন এর গুড়া আথবা বাটা
প্রনালিঃ প্রথমে একটা বাটিতে আধা কাপ লিকুইড দুধ ( রুম টেম্পারেচার হতে হবে ) নিয়ে এর মধ্যে ১চা চামচ হুয়াইট ভিনেগার দিয়ে দিতে হবে । এবার এটাকে ৫ মিনিটের জন্য রেখে দিতে হবে । ৫ মিনিট পর দেখবেন দুধ ছানা ছান হয়ে গেছে। এবার এই দুধে ১চা চামচ আদা গুড়া , ১চা চামচ রসুন গুড়া ( গুড়া না থাকলে আদা ,রসুন বাটা দিতে পারেন ),১ চা চামচ পাপরিকা , আদা চা চামচ গোল মরিচের গুড়া , ১চা চামচ ধনিয়ার গুড়া , স্বাদ মত লবণ , ১চা চামচা বেসিল , আধা চা চামচ অরেগান , আধা চা চামচা সরিষার সস ( সরিষা বাটা দিতে পারেন ) , আধা চা চামচ লাল মরিচের গুড়া দিয়ে ভালো ভাবে মিশাতে হবে । মেশানো হয়ে গেলে সব মাংসের টুকরো গোলো এই মিশ্রণ টিতে দিয়ে দিতে হবে এবং ভালো ভাবে মিশ্রণটির সাথে মিশাতে হবে । মেশানো হয়ে গেলে ৩ ঘণ্টা ( মেরিনেট করতে হবে ) রেখে দিতে হব ।
*** এবার অন্য একটি পাত্রে ১কাপ পরিমাণ  ময়দা নিয়ে এর মধ্যে স্বাদ মত লবণ , অল্প গোল মরিচের গুড়া দিয়ে ভালো ভাবে মিশিয়ে রেখে দিতে হবে ।                       *** এবার আর একটি পাত্রে ১ টি ডিম ও আধা চা চামচ আদা , আধা চা চামচ রসুন গুড়রা (গুড়া না থাকলে বাটা দিতে পারেন) দিয়ে এটাকেও ভালো ভাবে মিশাতে হবে ।              ***এবার মেরিনেট করা সুধু মাংসের টুকরো নিয়ে ময়দার মিশ্রণটিতে গড়িয়ে নিতে  হবে । এরপর ডিমের মিশ্রণটিতে চুবিতে নিতে হবে । আবার ময়দার মিশ্রণটিতে গরিয়ে নিতে হবে । এভাবে ৩,৪ বার ডিমে চুবিয়ে ও ময়দাতে গড়িয়ে নিতে হবে (এভাবে যতবার করবেন তত  হবে আর চিকেন ফ্রাই তত ক্রিস্পি হবে ) । এবার এটিকে ডুবু তেলে ভাজতে হবে । যখন ভাজা হয়ে যাবে এবং  বাদামি কালার আসবে তখন নামিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন মজাদার ক্রিস্পি চিকেন ফ্রাই ।

Friday, June 16, 2017

ফিশ ফিঙ্গার | Bangla Fish Finger Recipe | ক্রিসপি



ছোটো সোনামনিদের জন্য আরও একটি রেসিপি নিয়ে আসলাম, ফিশ ফিঙ্গার। আমি যে প্রসেসে করেছি, তাতে করে এটি প্রিপিয়ার করে অন্তত ১ মাস ফ্রিজে রেখে দেয়া যাবে। খাওয়ার ১ ঘন্টা আগে বের করে ভেজে নিলেই হলো। আর কোটিংটা এতো সুন্দর পুরু হয় যে ভেতরে তেমন তেল ঢোকেনা আর অনেক সময় ধরে ক্রিসপি থাকে। তাই সকালে ভেজে স্কুলের টিফিনে নিয়ে গেলেও টিফিনের সময় এটা অনেক ক্রিসপি থাকবে।

তৈরী করতে লাগছে -
- কাঁটা ছাড়া মাছের ফিলেট ২৫০ গ্রাম
- ডিম ২ টি
- দুধ ২ টেবিল চামুচ
- সয়া সস ২ টেবিল চামুচ
- শুকনো মরিচের গুঁড়ি ১ চা চামুচ
- লেবুর রস ০.৫ চা চামুচ
- লবণ ০.২৫ চা চামুচ
- গোল মরিচের গুঁড়ি: মেরিনেশনে ০.৫ চা চামুচ, ডিমের মধ্যে ০.৫ চা চামুচ

আমি স্যামন মাছ নিয়েছি, আপনারা বাছা, টুনা বা বোয়াল মাছের ফিলেট দিয়েও করতে পারেন। সুপার স্টোর গুলিতে এখন এগুলির পাশাপাশি, বোয়াল মাছের ফিলেট পাওয়া যায়।

Source: Rumana Apu

Thursday, June 15, 2017

রান্নার জন্য সহজ ও মজার ৫০ টিপস

বেঁচে থাকার জন্য আমাদের খাবার খেতে হয় আর খাবার-দাবারের উপাদানগুলো আমাদের গ্রহনের উপযোগী ও স্বাদ বৃদ্ধির করার জন্য যে প্রক্রিয়া আমরা অবলম্বন করি সেটাই হচ্ছে রান্না। রান্না আসলে একটা শিল্প। সুন্দর ও রুচিশীল রান্নার কদর বিশ্বব্যাপী। আমাদের জীবনযাত্রার সাথে তাল মিলিয়ে পাল্টাচ্ছে রান্নাবান্নার কৌশল ও ধরণ।

এক সময়ে শুধু মেয়েরাই রান্নাবান্নার সাথে যুক্ত থাকলেও বর্তমান কর্মব্যস্ত জীবনের চাহিদায় আমাদের সবাইকেই কম বেশি রান্না করতে হয়। কর্মব্যস্ততায় সব সময় গুছিয়ে পরিকল্পনা করে রান্না করা সম্ভব হয় না। রান্নার কাজ দ্রুত সেরে যেতে হয় অন্য কোন কাজে। আর এক্ষেত্রে রান্না সম্পর্কিত টুকটাক টিপস জানা থাকলে রান্না যেমন ভাল হয় তেমনি সময় বাঁচে। এজন্য ঘাবড়ানোর কিছু নেই, রেসিপি দেখে রান্না করতে হলে আগেই রেসিপিটা ভালোভাবে কয়েকবার পড়ে নিন। মনে রাখবেন সুন্দর পরিপূর্ণ রান্নার জন্য দরকার সৃজনশীলতা, উপস্থিত বুদ্ধি, সঠিক অনুমান ক্ষমতা আর অভিজ্ঞতা।

টিপসঃ

১। যথা সম্ভব পাতিলে ঢাকানা দিয়ে রান্না করুন, এতে খাবারের পুষ্টিমান ঠিক থাকে।
২। মাংস রান্নার শুরুতেই লবণ না দিয়ে রান্নার মাঝামাঝি সময়ে লবণ দিয়ে ভালভাবে নাড়ুন। এরপর দেখে নিন পরিমান ঠিক হল কিনা।
৩। তরকারির ঝোল ঘন করতে চাইলে কিছু কর্ণ ফ্লাওয়ার পানিতে গুলে ঢেলে দিন। লক্ষ্য রাখুন যেন কর্ণ ফ্লাওয়ারের মিশ্রণটি ভালমত তরকারির সাথে মিশে যায়।
৪। চাল ধোয়ার পর ১০ মিনিট রেখে দিয়ে তারপর রান্না করুন অথবা রান্নার সময় ১ চা চামচ রান্নার তেল দিয়ে দিন। দেখবেন ভাত সুন্দর ঝরঝরে হয়েছে।
৫। মুরগীর ফ্যাট এড়াতে চাইলে চামড়া ছাড়িয়ে মুরগি রান্না করুন। কারন মুরগির চামড়াতেই প্রধান ফ্যাট থাকে।
৬। সবুজ সবজি রান্নার সময় সবুজ রং ঠিক রাখতে চাইলে এক চিমটি চিনি দিন।
৭। রান্না করার জন্য একদিন আগেই মাংস সেদ্ধ এবং ঠান্ডা করে ফ্রিজে সংরক্ষণ করে রাখতে পারেন।
৮। রান্নার সময় গরম পানি ব্যবহার করুন।
৯। ফ্রিজের মধ্যে আঁশটে গন্ধ দূর করতে ফ্রিজে এক টুকরো কাঠ কয়লা রেখে দিন।
১০। মাংস তাড়াতাড়ি সেদ্ধ করতে চাইলে খোসাসহ এক টুকরো কাঁচা পেঁপে তরকারীতে দিন।
১১। মাছ, মাংস বা ডিমের ঝোলে লবণ বেশি হয়ে গেলে তরকারিতে কয়েকটি সিদ্ধ আলু ভেঙে দিন। স্বাদ ঠিক হয়ে যাবে।
১২। মুরগির মাংস বা কলিজা রান্নাইয় ১ টেবিল চামচ সিরকা দিন। এতে মাংসের গন্ধ থাকবে না আবার তাড়াতাড়ি সিদ্ধও হবে।
১৩। মাছ ভাজার সময় তেল ছিটা রোধ করতে একটু লবণ ছড়িয়ে দিন।
১৪। বেরেস্তা করার সময় পেঁয়াজ ভেজে নামানোর আগে সামান্য পানি ছিটিয়ে দিন এতে পেঁয়াজ তাড়াতাড়ি লালচে হবে।
১৫। কাঁচা মাছ বা মাংস ছুরি-চপিং বোর্ডে কাটতে চাইলে বেশ কিছুক্ষণ আগে থেকেই পানিতে ভিজিয়ে নরমাল করে নিন।
১৬। আলু ও ডিম একসঙ্গে সিদ্ধ করুন, আলাদা কাজে ব্যবহার করলেও তাড়াতাড়ি সিদ্ধ হবে।
১৭। স্যুপ রান্নার সময় পাতলা হয়ে গেলে দুটি সিদ্ধ আলু ম্যাশ করে স্যুপে মিশিয়ে ফুটিয়ে নিন।
১৮। ডাল তাড়াতাড়ি রান্না করতে আগের রাতেই ভিজিয়ে রাখুন।
১৯। সহজে মসলাপাতি খুঁজে পেতে কৌটার গায়ে নাম লিখে রাখুন।
২০। আগামী দিন কী রান্না করবেন তার প্রস্তুতি রাতেই নিনতাহলে সময় বেঁচে যাবে।
২১। রান্না করার সময় অবশ্যই মাছ ও সবজির কম্বিনেশনের ব্যাপারে নজর রাখবেন ।
২২। মাছ রান্না করে কাঁচা ধনিয়া পাতা থাকলে তা কুচি করে কেটে বিছিয়ে দিন, স্বাদ অনেকগুণ গুন বেড়ে যাবে।
২৩। ডালে বাগার দিতে রসুন কুচি তেলে ভেজে ডালে দিয়ে দিন।
২৪। মাংশ জাতীয় রান্না করে শেষে বেরেস্তা (পেঁয়াজ কুচি ভাজি) ছড়িয়ে দিন এতে স্বাদ বেড়ে যাবে।
২৫। ডিম সিদ্ব করতে পানিতে সামান্য লবন দিয়ে নিন এতে ডিম খেতে সুস্বাদু হবে। আর ঠান্ডা করে ডিম ছিলুন তাহলে খোসায় লেগে ডিম নষ্ট হবে না।
২৬। চুলায় হাড়ি পাতিলে ঢাকনা থাকলে তা খালি হাতে ধরবেন না।
২৭। ভর্তা বানাতে মরিচ খালি হাতে ঢলবেন না এতে হাতে জ্বলুনি হবে।
২৮। মাছ ভাঁজতে কড়াই হতে নিদিষ্ট দূরে থাকুন। মাছে পানি থাকলে কিংবা ফুটে আপনার গায়ে বা চোখে তৈল পড়তে পারে।
২৯। শুকনা মরিচ ভাজার সময় মরিচ পোড়ার ঝাঁঝে হাঁচি-কাশি রোধে রান্নাঘরের দরজা জানালা ভাল করে খুলে দিন।
৩০। ভাজিতে তেল বেশী পড়ে গেলে ভাজিগুলো কড়াই বা প্যানের এক দিকে সরিয়ে কড়াই কাত করে কিছুক্ষণ রেখে দিন। তেল ভাজি থেকে ঝরে গেলে সংরক্ষন করে অন্য রান্নায় ব্যবহার করতে পারবেন। মাংসের তরকারীতে যদি তেল বেশী হয়ে পরে তবে উপর থেকে চামচ দিয়ে তেল উঠিয়ে ভাজিতে ব্যবহার করলে ভালোই সুস্বাদু লাগে।
৩১। এলাচ সম্পুর্ণ গুড়ো করে ব্যবহার করা ভাল এতে এলাচ কামড়ে পড়ে খাওয়ার মজা নষ্ট হবে না। আবার রান্নাতেও সুগন্ধ হবে।
৩২। সবজীর রং ঠিক রাখতে পাতিল ঢেকে রান্না না করাই ভাল। আর কিছু সবজিকে সামান্য সিদ্ব করে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেললে কিংবা বরফ কুঁচিতে রাখলে রান্নার পরও রং ঠিক থাকে।
৩৩। কিছু ভাজিতে কড়াইতে তেল গরম হলে যা দেবেন তার সাথে সামান্য লবণ দিয়ে দিন, তেলের ছিটকা উঠবে না।
৩৪। ডালের মজা বৃদ্ধির জন্য বেশি সময় ধরে রান্না করুন, স্বাদ বেড়ে যাবে ।
৩৫। তেলাপিয়া মাছের গন্ধ দূর করতে তেলাপিয়া মাছ হলুদ ও ভিনিগার/লেবুর রস মাখিয়ে মিনিট ১৫ রেখে রান্না করুন।
৩৬। লাল সর্ষে্র ঝাঁঝ বেশী হয়। হলুদ সর্ষে ব্যাবহার করলে তিতা হয়না। সর্ষে বাটার সময় লবন আর কাচামরিচ এক সাথে বাটলে তিতা হয়না।
৩৭। বর্ষাকালে লবণ গলে যায় তাই এক মুঠো পরিষ্কার চাল পুটলি করে বেঁধে লবণের পাত্রে রেখে দিন।
৩৮। কাঁচের গ্লাসে গরম কিছু নিতে গেলে অনেক সময় ফেটে যায় তাই গরম কিছু ঢালবার আগে গ্লাসে একটি ধাতু নির্মিত চামচ রেখে ঢাললে গ্লাস ফাটবে না।
৩৯। আলু এবং আদা বালির মধ্যে ডুবিয়ে রাখলে অনেক দিন পর্যন্ত টাটকা থাকে।
৪০। যে কোনো খাবার রেফ্রিজারেটরে রাখলে ঢাকনা দিয়ে রাখা ভালো, ফলে এক খাবারের গন্ধ আরেক খাবারে যায় না এবং রেফ্রিজারেটও গন্ধ হয় না।
৪১। শিশি বা কৌটোর মধ্যে বিস্কুট রাখার আগে সামান্য চিনি বা মোটা কাগজের ঠুকরো রেখে দিলে বিস্কুট অনেকদিন মচমচে থাকে।
৪২। আঙ্গুর, টমেটো প্রভৃতি ফল ফুটন্ত পানিতে দু’মিনিট রেখে সঙ্গে সঙ্গে ঠান্ডা পানিতে রেখে সহজেই খোসা ছড়ানো যায়।
৪৩। চাল ও ডালের কৌটায় কয়েকটি শুকনো নিমপাতা বা শুকনো মরিচ রাখলে সহজে পোকা ধরবে না।
৪৪। কাঁচকলা ও লেবু প্রতিদিন অন্ততঃ এক ঘন্টা পানিতে ভিজিয়ে রাখলে বেশিদিন টাটকা থাকে।
৪৫। কাঁচামরিচের বোঁটা ফেলে পানি শুকিয়ে কাপড়ের বা কাগজের প্যাকেটে সংরক্ষণ করলে বেশি দিন ভালো থাকে।
৪৬। চিকেন ফ্রাই, চিকেন রোল—এসব খাবার অ্যালুমিনিয়াম ফয়েলে মুড়িয়ে রাখলে সহজে নষ্ট হয় না।
৪৭। সিরকা ও সোডিয়াম বেনজোয়েট দিলে আচার দীর্ঘদিন ভালো থাকে।
৪৮। আচার বয়াম থেকে নেওয়ার সময় পরিষ্কার চামচ ব্যবহার করলে আচারে ফাঙ্গাস পড়ে না।
৪৯। চিনির পাত্রের মধ্যে দু-চারটি লবঙ্গ দিয়ে রাখলে পিঁপড়ে ঢুকবে না।
৫০। খাবার পুড়ে পাত্রের তলায় আটকে থাকলে পাত্রটিকে নুনপানিতে ভর্তি করে পানি ফুটালে পোড়া অংশ দ্রুত আলাগা হয়ে উঠে যায়।
আপনার জানা আরও কোন সহজ ও মজার টিপস থাকলে নিচের মতামত অংশে শেয়ার করতে পারেন সবার সাথে।
সূত্র: Charpashe